সরকারিভাবে দক্ষিণ কোরিয়া যাওয়ার উপায়

প্রিয় পাঠক বন্ধুগণ, আপনি জানতে চাচ্ছেন সরকারিভাবে দক্ষিণ কোরিয়া যাওয়ার উপায়। চিনব আপনার জানার আগ্রহ আছে যখন করে কাজের ভিসা কি। তাছাড়া আপনি জানতে পারবেন কিভাবে দক্ষিণ কোরিয়া যেতে হয়। তাছাড়া আরো জানতে পারবেন দক্ষিণ কোরিয়া স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে যাওয়ার নিয়ম কি। কিভাবে যখন করে এত স্টুডেন্ট ভিসা যাওয়া যায়। তাছাড়া আপনি যদি স্টুডেন্ট যখন করে যেতে চান তাহলে আপনার কি রকম খরচ হবে এবং কি রকম কাগজপত্র দরকার। 
সরকারিভাবে-দক্ষিণ-কোরিয়া-যাওয়ার-উপায়
তার শর্ত কি রকম হবে সেগুলো সম্পর্কে জানতে পারবেন। আরো জানতে পারবেন যখন কোরিয়া যাওয়ার উপায় কি। বর্তমান সময়ের সরকার আপনাকে ফ্রিতে। তাই আপনি যদি ফ্রিতে যাইতে চান তাহলে আপনাকে কি কি পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে সে সকল সম্পর্কে জানতে পারবেন। কারণ তখন করে অন্যান্য তুলনা বিভিন্ন প্রকার কাজের মান খুব ভালো। কারণ এই দেশে কাজের তুলনায় যেভাবে বাড়তে থাকে সেভাবে দোকান করেছে ভালো টাকা পায়।

ভূমিকাঃ দক্ষিণ কোরিয়া কাজের ভিসা

সরকারিভাবে দক্ষিণ কোরিয়া যাওয়ার উপায়। যদি দক্ষিণ করে এত বর্তমানে খুব শিল্প কাজ চলতেছে। তাছাড়া শিল্প কারখানা গুলোতে কাজ করে বাংলাদেশ শ্রমিকরা যেভাবে দক্ষিণ কোরিয়ার বেশ জনপ্রিয় লাভ করেছে পাক কত দূর দুরান্ত। তাছাড়া আপনি যদি দক্ষিণ কোরিয়াতে যেতে চান তাহলে আপনাকে বেশ কিছু তথ্য জানতে হবে। তার ভিতরে অন্যতম হলো সরকারি ভাবে আপনি কিভাবে দোকান কোরিয়া যেতে পারেন। 

তবে আপনাদের দক্ষিণ কেরিয়ে যেতে চান তাহলে আপনি সরকারিভাবে দক্ষিণ কোরিয়া যাওয়ার উপায় সম্পর্কে জেনে নিন। তাহলে আপনি কোন খরচ ছাড়াই দক্ষিণ কোরিয়া যেতে পারবেন। কারণ বাংলাদেশ সরকার এর কাছে দক্ষিণ কোরিয়া থেকে চিঠি এসেছে যখন কোরিয়া যেতে যা টাকা লাগবে সেটা যতন করে দেশের সরকার বহন করবে। তাই বাংলাদেশ সরকার ফ্রিতে নিয়ে যাচ্ছে আপনাদের।

আপনি দক্ষিণ কোরিয়া যে ডিগ্রি নিয়ে যান না কেন আপনি সেখানে ভালো টাকা ইনকাম করতে পারবেন। দক্ষিণ কোরিয়াতে যাওয়ার এবং বেশ কিছু উপায় আপনি রয়েছে। আপনি সেগুলো থেকে যখন একটা উপায় তখন করে যেতে পারবেন। আজকের পোস্ট তৈরি করা হয়েছে মূলত দক্ষিণ কোরিয়া কিভাবে যাওয়া যায়। 

আপনি কিভাবে দোকান করে যেতে পারবেন সেটা সম্পর্কে আজকে আমরা সে সকল তথ্য নিয়ে চলে এসেছি। দক্ষিণ কোরিয়া যদি আপনি যেতে চান তাহলে কোন কাজে কত টাকা বেতন দেয় সেটা সম্পর্কে জানা জরুরী।

দক্ষিণ কোরিয়া যাওয়ার নিয়ম

আপনি যদি বাংলাদেশ থেকে দক্ষিণ কোরিয়া যেতে চান তাহলে আপনার জন্য খুব সহজ। কারণ বর্তমান সময়ে বাংলাদেশ এবং দক্ষিণ কোরিয়া দুই দেশের সম্পর্ক খুব ভালো। কয়েকটি নিয়ম আছে যেগুলো নিয়ম মেনে আপনি যখন করে খুব সহজে যেতে পারবেন। অনেকে দেখা যায় যে দক্ষিণ কোরিয়া যাওয়ার জন্য আপনার রেস্টুরেন্ট ভিসা করেন দোকান করে আপনার কাজ খুব ভালো পাবেন।

তাছাড়া আপনি যদি সুজন বিশ্বাস ছাড়া যেতে চান তাহলে আপনি সরকারি কিছু ভিসা পাবেন। যেগুলোর মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই তখন করে যেতে পারবেন। তাছাড়া আপনি যদি চান তাহলে বাংলাদেশ সরকারের ট্রেনিং নিয়ে তারপর আপনার লটারির মাধ্যমে আপনি দিতে পারবেন। 

সময় দেখা যায় যে আপনাদের মধ্যে পরীক্ষা হয় পরীক্ষা হয়ে যাবে একটি বেশি নম্বর থেকে দক্ষিণ কোরিয়া যাওয়া হয়। আপনি যেভাবে যখন করে যেতে চান না কেন তাহলে দক্ষিণ কোরিয়া যেতে হলে কিছু নিয়ম আপনাকে। যে নিয়ম নামলে আপনাকে দোকান করিয়া যেতে দেওয়া হবে না।

সরকারিভাবে দক্ষিণ কোরিয়া যাওয়ার উপায়

আপনি হয়তো জানতে চাচ্ছেন যে কোন গ্রহের আছে কিভাবে দোকান করা যেতে হয়। খুব অল্প সুখ খরচ আপনি কিভাবে দোকান করে দিতে পারবেন সে সম্পর্কে আপনি জানতে চাচ্ছেন। কিংবা আপনি যদি অল্প খরচের ভিতরে দক্ষিণ করা যেতে চান তাহলে এটি হতে পারে আপনার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি পোস্ট। কারণ এখানে আমরা তুলে ধরবো কিভাবে আপনাকে সর্বনিম্ন খরচে যোগদান করে যেতে পারবেন। 

সরকারি সাহায্য নিয়ে কিছু অল্প কিছু আর্থিক সহযোগিতা করে আপনি সহজে নতুন করে দিতে পারবেন। আর আপনি যদি সরকারের ভাবে দখল করে যেতে চান তাহলে আপনার বেতন ভাতা এবং বিভিন্ন কাজের চাহিদা ও বেশি হবে। তাই সে সম্পর্কে চাহিদা মেটাতে হলে আপনাকে সরকারি ভাবে দক্ষিণ কোরিয়া যেতে হবে। আমরা তুলে ধরেছে কিভাবে সরকারি খরচে কম খরচে আপনি যখন করে দিতে পারবেন আপনি নিজে একটু পড়তে থাকুন তাহলে জানতে পারবেন।

সরকারি ভাবে দক্ষিণ কোরিয়া যাওয়ার পদ্ধতি

আপনি যদি সরকারিভাবে দক্ষিণ কোরিয়া যেতে চান, তাহলে সরকার থেকে আপনাকে বেশ কিছু উপায়ে সাহায্য করবে। প্রত্যেক বছর আপনার জন্য সরকারিভাবে দখিন করিয়া যাওয়ার জন্য কিছু নিয়ম নিতে হয়ে থাকে। আপনি যদি খোঁজ নেন তাহলে দেখতে পারবেন ভাই শুনতে পারবেন বা জানতে পারবেন এপ্রিল অথবা মেয়ে মানুষের দেখে বাংলাদেশ থেকে সরকারে ভাবে সম্পন্ন ফ্রিতে দক্ষিণ কোরিয়া নিয়ে যাওয়া হয়। 

কোন ব্যক্তি যদি সরকারি ভাবে দখল করে যেতে চায় তাহলে তাকে অবশ্যই কিছু নিয়ম মানতে হবে। তবে তাকে ফ্রিতে দোকান করিয়া সরকারি ভাবে লটারির মাধ্যমে জিটিএ নিয়ে যাওয়া হবে।
  1. যদি লটারিতে আপনার নাম আছে তাহলে ২০০ নাম্বারের ভাষাগত যোগ্যতা আপনাকে পরীক্ষা বসাতে হবে।
  2. নতুন করে লটারি বিজ্ঞাপন প্রকাশিত হওয়ার পর থেকে আবার রাসেল ওনার ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আপনাকে লটারি নিবন্ধন করতে হবে।
  3. এরপর ভাষা গত কিছু পরীক্ষা দিতে হবে ভাষা গত পরীক্ষা দেওয়ার পর শিক্ষাতে স্টিল টেস্ট পরীক্ষার বসাতে হবে।
  4. সম্পন্ন পরীক্ষায় যদি আপনি উত্তর না হতে পারে তাহলে পুলিশ ভেরিফাই এর মাধ্যমে আপনার সার্টিফিকেট জন্ম নিবন্ধন সকল কিছু তদন্ত করা হবে।
  5. রেজিস্ট্রেশন নাম্বার আসলে আপনাকে ভিসা ফরম পূরণ করতে হবে তারপর জমা দিতে হবে।
  6. এবার আপনাকে এইচ আরডি আপনার সেটের পক্ষে কিছু কল্পনা রয়েছে তারা সম্পর্কে ট্রেনিং করতে হবে।
  7. এরপর যদি সবকিছু ঠিকঠাক থাকে তাহলে নির্দিষ্ট সময় আপনাকে সরকারের চাকরির জন্য ডাকা হবে।
  8. এর পরে আপনার ফ্লাইট শুরু হবে আপনি আপনাকে রেটে থাকতে হবে সব সময়। যে কোন সময় আপনার ফ্লাইট হতে পারে।

বর্তমান সময়ে দক্ষিণ কোরিয়াতে কি কি কাজের লোক নিচ্ছে

সরকারিভাবে দক্ষিণ কোরিয়া তে কি কি ভাবে লোক নিচ্ছে। বা কি কি লোক নেবে সেটা সম্পর্কে জানতে হলে আমাদের প্রশ্ন করতে থাকুন। তাছাড়া উক্ত পোস্টে তৈরি করা হয়েছিল মূলত সরকারিভাবে দক্ষিণ কোরিয়া যাওয়ার উপায় কি? বিভিন্নভাবে ছোট মাজারে শিল্প বড় কারখানার বিভিন্ন ধরনের কারখানা রয়েছে সেগুলো কারখানা লোক লাগতেছে। আপনি যদি সেগুলোতে কোম্পানিতে যেতে চান তাহলে আপনাকে কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন সম্পর্কে আপনি যেতে পারবেন। 

আশা করি সেখানে গেলে আপনি ভালো মানের বেতন পারবেন। আছে সকল কর্মীরা নানাভাবে সুযোগ সুবিধা পায় তার পাশে পেশ সরকারের ভাবে নিয়ে যাওয়া হয়। সরকারের ভাবে যেতে চান তাহলে আপনার খরচ খুব কম পড়বে এবং সেখানে কেউ আপনার খরচ থাকা খাওয়া খুব কম হবে। তাই আপনি কোন খরচে অতি খারাপ বেতন পেতে হলে আপনাকে বেশ কিছু তথ্য নিয়ম কানুন মেনে নিতে হবে। এত করে আপনি সবসময় লাভ বানাতে পারেন।

সরকারি ভাবে দক্ষিণ কোরিয়া গেলে খরচ কত হবে

যে ব্যক্তি সরকারিভাবে দক্ষিণ কোরিয়া যেতে চায় তার খরচ হবে খুবই সীমিত। আপনি যদি সরকারি ছাড়া এমনি করে সরকারি ভাবে দক্ষিণ কোরিয়া যেতে চান তাহলে আপনার পরবে। আর যদি আপনার সরকারি ভাবে কাটিয়ে যেতে চান তাহলে আপনার খরচ খুবই সীমিত হবে। যদি সরকারের ভাবে দখল করা যেতে চান তাহলে আপনাকে আবেদন করতে হবে। আপনাকে আবেদন ফ্রি হিসেবে ৫০০ টাকা জমা দিতে হবে। 

তবে এবাদিত অল্প কিছু খরচ হবে দক্ষিণ কোরিয়া যেতে আপনার। তবে তা খুবই কম বা সীমিত। আপনার যেমন খরচ হবে সেটি হল যাতায়াতের জন্য আপনার কাছে খরচ হবে। আর মেডিকেল করতে কিছু খরচ করতে পারে। এ ছাড়া আপনার কোন খরচ করবে না। তবে আপনি যদি দক্ষিণ কোরিয়া এমনি যেতে চান নিজেস্ব ভাবে। তাহলে তাহলে আপনার অনেকটা খরচ পরবে যা বলার বাহিরে। অনেকে বলেন যে, সরকারি স্যার আছে আপনি এজেন্ট এর মাধ্যমে দক্ষিণ কোরিয়া যেতে চান তাহলে আপনার খরচ হবে ৮ থেকে ৯ লক্ষ টাকা।

দক্ষিণ কোরিয়া কাজের বেতন কত

দক্ষিণ কোরিয়া যারা সরকারী ভাবে বায়োসেলের মাধ্যমিক যায়। তারাও কমপক্ষে এক লক্ষ টাকা থেকে তিন লক্ষ টাকা পর্যন্ত বেতন পেয়ে থাকে। তাছাড়া আপনি যখন করে যেতে চান তাহলে সরকারের ভাবে আপনি যান তাহলে আপনার যেমন কাজের যোগ করতে পারে হচ্ছে তেমন আপনার বেতনও বাড়বে। তবে দোকান করে এত কর্মীদের জন্য নূন্যতম মাসিক বেতন ১ লক্ষ ৪৫ হাজার টাকা থেকে ৫০ হাজার টাকা। 

দক্ষিণ কোরিয়া তে যারা বাংলাদেশ থেকে কর্মি যায় তারা কনস্ট্রাকশনের কাজ করে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে। আপনার সঙ্গে দেখা যায় যে অনেকের রেস্টুরেন্টের কাজ করে। আবার অনেক সময় অনেকে কার খানার কাজ করে। তবে যারা দোকান করে হাতে আইটি ক্ষেতের কাজ করে তাদের মধ্যে অনেকে সাত থেকে আট লক্ষ টাকা বেতন পায়।

দক্ষিণ কোরিয়ার টাকার মান কেমন

দক্ষিণ কোরিয়ার মুদ্রার নাম উয়ন। তবে যখন কোরিয়াতে এক উয়র টাকা সমান বাংলাদেশের ০.০৮৩ টাকা। তবে দক্ষিণ কোরিয়ার এক হাজারো সমান বাংলাদেশ এর ৮৩.৩৬ টাকা/পয়সা। যা বাংলাদেশ টাকার চেয়ে খুবই মান কম। তাই তাদের সাথে তুলনা করা ঠিক না তবে তারা উন্নত মানের একটি দেশ হিসেবে পরিচিত লাভ করেন। এত টাকার মান খুব বেশি হয়। বাংলাদেশের মানুষ যেমন পয়সার হিসেব করে ঠিক তেমনি তারা টাকার হিসেব করে।

দক্ষিণ কোরিয়া স্টুডেন্ট ভিসা

যারা যারা পড়াশোনা করার কারনে দক্ষিণ কোরিয়া যেতে চান তারা স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে দক্ষিণ কোরিয়াতে যেতে পারেন। আপনাদের মধ্যে যারা স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে দক্ষিণ কোরিয়া যেতে চাচ্ছেন তারা সবাই নতুন করে খুব ভালোভাবে যেতে পারবেন। যেহেতু এরকম প্যান্টের মধ্যে সব ভালো ভালো কলেজ এবং সবচাইতে জনপ্রিয় স্কুল কলেজ শব কোরিয়ায় রয়েছে।

তাই আপনি যদি ভালো মনে পড়াশোনা করতে চান তাহলে আপনাকে দোকান করে যেতে হবে। সে ক্ষেত্রে আপনাকে দক্ষিণ কোরিয়া যেতে হবে স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে। তাছাড়া যখন কোরিয়ার স্কুল সব সময় স্টুডেন্ট দের জন্য উন্নতমানের স্কলারশিপ দিয়ে থাকে। এবং তারা সবসময় স্টুডেন্ট সাথে থাকে কারণ সে দেশের জন্য সবাই পড়াশোনা করার জন্য যেতে পারে। 

প্রতিবছর দোকান করে এত বাংলাদেশ সহ বিভিন্ন দেশ থেকে কলেজ থেকে ছাত্রছাত্রীরা পড়াশোনা করার জন্য। আর সেই কারণে দক্ষিণ কোরিয়ার সরকার প্রতি বছরেই স্টুডেন্ট ভিসা দিয়ে থাকে, যাতে করে সবাই সেখানে পড়াশোনা করার জন্য যেতে পারে। তাছাড়া আপনি যদি যখন শর্ত মানতে হবে। আশা করি এতক্ষণ ধরে আপনার সে সত্যগুলো সম্পর্কে জানতে পেরেছন।

দক্ষিণ কোরিয়ার স্টুডেন্ট ভিসার শর্ত সমূহ

দক্ষিণ কোরিয়া যাওয়ার জন্য যারা স্টুডেন্ট ভিসা করতে যাচ্ছেন তাদেরকে কিছু শর্ত মেনে তার পরে যেতে হবে। মূলত এই শর্তগুলো না মানলে কেউ দক্ষিণ তে গিয়ে কেউ কোনদিন রাস্তায় চলাচল করতে পারবেন না। দক্ষিণ কোরিয়াতে স্টুডেন্ট ভিসায় যেতে হলে যে গুলো শর্ত আপনাকে মানতে হবে তা হল-
  1. ভাষাগত যোগ্যতা থাকতে হবে। কিংবা এক কথায় আপনাকে ভাষা জানতে হবে।
  2. আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকতে হবে।
  3. ব্যাংক স্টেটমেন্ট থাকতে হবে।
মূলত এই তিনটি শর্ত যদি আপনারা মানতে পারেন তাহলে দক্ষিণ কোরিয়াতে স্টুডেন্ট ভিসা হিসাবে গেলে আপনাদের আর কোন সমস্যা হবে না। যদি আপনি স্টুডেন্ট ভিসার দক্ষিণ কোরিয়াতে যেতে চান তবে আপনাকে সর্বনিম্ন এসএসসি এবং এইচএসসি পাস থাকতে হবে। এবং তার সাথে এসেছি এবং এইচএসসি পরীক্ষায় আপনাকে সর্বনিম্ন 2.80 পয়েন্টের উপর থাকতে হবে। তবেই আপনি দক্ষিণ কোরিয়া স্টুডেন্ট ভিসায় যাওয়ার জন্য আবেদন করতে পারবেন।

শেষ কথা

আপনি যদি থাকেন কোরিয়ায় যেতে চান। অথবা আপনি যদি খুবই কম সময় দক্ষিণ কোরিয়াতে যেতে চান। তাহলে আপনাকে সরকারিভাবে দক্ষিণ কোরিয়া যাওয়ার উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে হবে। তবে আপনি দোকান করে সর্বনিম্ন বা কম খরচে দক্ষিণ কোরিয়া হিয়ে ভমণ করে আসতে পারবেন। আপনি যদি যখন কোরিয়া যান তাহলে আপনার পড়াশোনা মন খুব ভালো হবে। 

দক্ষিণ কোরিয়া এমন একটি দেশ যে দেশে কাজ করার সুযোগ আছে। আপনি যদি স্টুডেন্ট ভিসা নিয়ে পড়াশোনা করতে চান তাহলে পড়াশোনা পাশাপাশি আপনি হোস্টেলে কাজ করতে পারবেন। সে ক্ষেত্রে যদি আপনার বিষয় হিসেবে কাজ করেন তাহলে আপনি কাজ করে যে টাকা পাবেন সে টাকা দিয়ে আপনি চলতে পারবে এবং আপনার বাড়িতেও কিছু টাকা পাঠাতে পারবেন। 

তাছাড়া সেখান থেকেই আপনাকে দেওয়া হবে একটি চাকরি। কে ফটো পোস্ট যদি আপনার ভালো লাগে তাহলে একটা কমেন্ট করে আমাদের আরো বেশি উতসাহিত করবেন। তাছাড়া দোয়া করবে যাতে সামনের দিনগুলোতে যাতে আমরা আপনাকে সকল বিষয়ে সাহায্য করতে পারি।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

শামিম বিডির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url