monas 10 এর কাজ কি । মোনাস ১০ এর দাম কতো

প্রিয় পাঠক বন্ধুগণ, আশা করি এই মুহুর্তে আপনি monas 10 এর কাজ কি? মোনাস ১০ এর দাম কতো??মোনাস ১০ খাওয়ার নিয়ম? ভুল করে ঔষধ সেবন না করলে আমাদের কোন ক্ষতি হবে কিনা বা তার করণীয় কি? monas 10 এর কাজ কি বা মোনাস ১০ এর দাম কতো? কিংবা যদি ঔষধ সেবন করার সময় শেষ হয়ে যায় তার পরেও যদি আমরা ঔষধ সেবন করি তাহলে আমাদের কোন সমস্যা হবে কিনা? বা সমস্যা হলেও আমরা কি করতে পারি আমাদের করণীয় ঠিক কি?
monas-10-এর-কাজ-কি-মোনাস-১০-এর-দাম-কতো
আশা করি আপনি উক্ত পোষ্ট টি মনোযোগ সহকারে পড়বেন। করণ এটি এমন একটি ঔষধ যার কোন কিছু তত্ব যদি একবার বাদ পরে যায়। বা কোন কোন সময় এই ঔষধ সেবন করা যায়। কিংবা কেন এই ঔষধ সেবন করবেন। কার কার ক্ষেত্রে এই ঔষধ সেবন করা যাবেনা। আশা করি উক্ত পোস্ট পড়লে আপনি সেই সকল কিছু সম্ভর্কে সকল তত্ব জানতে পারবেন। তাই মোনাস ১০ ঔষধ থেকে সঠিক ফলাফল পেতে হলে উক্ত পোস্টটি মনোযোগ সহকারে আপনাকে পড়তে হবে। এবং আপনি সকল কিছু যানতে পারবেন।

ভূমিকা

monas 10 এর কাজ কি - মোনাস ১০ এর দাম কতো? গর্ভবতী অবস্থায় কোন নারীর জন্য না ট্যাবলেট যাবে কিনা। তাছাড়া জানতে পারবেন মোনাস ১০ ট্যাবলেট খাওযার নিয়ম। বোনাস দশ পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া প্রক্তো নাকি। মোনাস ১০ খাওয়ার পূর্বে আপনি সকল তথ্য জেনে নিন। তাহলে আপনি সবসময় সচেতন থাকতে পারবেন। বর্তমান যুগের যা অবস্থা সতেচন না থাকলে আমাকে খুব সমস্যা হয়ে দাঁড়াবে। 

আশা করবো আপনি তো পোস্ট মনোযোগ সহকারে করবেন। আমি মনে করে আশা করি আপনি যদি পড়তে কষ্ট মনোযোগ সহকারে করেন তাহলে আপনি সকল কিছু জানতে পারবেন। আর তাই দেরি না করে চলুন আজকে আমরা জেনে নেই মোনাস ১০ ট্যাবলেট খাওয়ার নিয়ম। আর তাই দেরি না করে জেনে নিন আপনি monas 10 এর কাজ কি?

monas 10 এর কাজ কি

মোনাস ১০ কারণ হচ্ছে বা সঠিক কাজ হল- লিওকো ট্রাইন। মূলত এবাদতের ক্ষমতা হলো কার্যক্ষমতা বন্ধ করে দেয়। তাছাড়া লিওকো ট্রাইন খাওয়ার ফলে শরীরের আজমা এনার্জি কে নামক পঠিত রায়নাইটিস সর্বদা উন্নত করতে সক্ষম। তাই মোনাস ১০ ট্যাবলেট সেপনের ফলে শরীরে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। যেমন এনার্জি, আসমা, এবং কার্যক্ষমতা বন্ধ করে দেয়ার প্রক্রিয়া গুলোকে সর্বদা বন্ধ করে দেয়। 
যেটার ফলে আমাদের মানবদেহের আজমা এলার্জির এই ধরনের সমস্যা বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হয়ে থাকে। তাছাড়া মোনাস ১০ ট্যাবলেট ব্যাপক হারে পরিচিতি লাভ করেছে। যা বিভিন্ন ধরনের রোগের ঔষধ হিসেবে কাজ করে থাকে। মোনাস টেন ট্যাবলেট খাওয়ার ফলে মূলত যে যে সমস্যা দূর হতে পারে সেগুলো হলো- নাকের সমস্যা, কাশি, কফ ইত্যাদি নানা ধরনের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। 

বিভিন্ন ধরনের চিকিৎসা যেমন এলার্জি অ্যাজমা চিকিৎসা ক্ষেত্রে ব্যাপক হারে ফলন ফলায়। এটা ফল এলার্জি অ্যাজমা লক্ষণ থেকে খুব সহজেই শ্বাস প্রশ্বাস নেওয়া যায়। চাছারা ফাইটিং চাপলে ইত্যাদি শ্বাস-প্রশ্বাস কমে যায়। এসব লক্ষ্য ক্ষেত্রেহাস করতে যতক্ষণ ভাবে আমরা সাহায্য বা সহযোগিতা করে থাকি।

মোনাস ১০ এর দাম কতো

বর্তমানে যে বাজার এই বাজারে ভালো মানের ওষুধ পাওয়া খুব কঠিন। তবে তার মতো ভালো কিছু ওষুধ রয়েছে তার মধ্যে একটি হলো মোনাস ট্যাবলেট। এটি মূলত এলার্জির ট্যাবলেট। বাজারের বিভিন্ন ধরনের এলার্জির ট্যাবলেট পাওয়া গেল এটি তার মধ্যে সর্বোত্তম। মোনাস ১০ এর দাম হলো-
  • একটি মোনাস ১০ ট্যাবলেট এর দাম ১৬ টাকা।
  • এবং ১৫ টি মোনাস ১০ প্যাকেট এর দাম ২৪০ টাকা।
  • তাছাড়া ৩০ টি প্যাকেট এর দাম হচ্ছে ৪৮০ টাকা।

মোনাস ১০ খাওয়ার নিয়ম

আমাদের মধ্যে যাদের ঠান্ডা জনিত সমস্যা রয়েছে তারা এই মোনাস ১০ এই ওষুধ টি প্রবাহ করবো। আমাদের মধ্যে যাদের নাকের সমস্যা, কফ অথবা কাশি হয়েছে তারা এই মোনাস ১০ ওষুধ টি ১০ দিন সেবন করবেন। দশ দিন সেবন করার ফলে যদি আপনার সমস্যা সমাধান না হয় তাহলে এটা আপনি একমাস সেবন করতে পারেন। আবার যাদের যাদের অ্যাজমা রোগ হয়েছে তাদের জন্য এটি সব সময় ব্যবহার করতে হবে।

তবে আপনারা যদি মনে করেন ট্যাবলেট খাওয়ার আরো বেশ কিছু নিয়ম জানতে যান তাহলে আপনার ডাক্তার থেকে পরামর্শ নেন। কারণ ডাক্তার পরামর্শ ছাড়া কোন ঔষধ করা ঠিক না। তাই একটি বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের কাছে যান এবং তার কাছ থেকে পরামর্শ নেওয়া যাবেনা কিভাবে সেবন করতে হবে। বিশেষজ্ঞ ডাক্তারগন আপনাকে পরামর্শ দেবে ভালোভাবে কিভাবে শরীর ফিট রাখা যায়।
আপনার শরীরের কনভার্টেশন বা অবস্থার ওপর ভিত্তি করেন ট্যাবলেট খেতে হবে। আপনাকে মনে হোস্টেল ট্যাবলেট খাওয়ার যে নিয়ম বলবে সেই নিয়ম অনুযায় আপনাকে ট্যাবলেট খেতে হবে। কোন নিয়ম বাতিতে মোনাস ১০ ট্যাবলেট খাওয়া যাবে না বা ঠিক হবেনা। কোন কিছু যাতে খেতে চান তাহলে তোমার ডাক্তারের পরামর্শ নিতেই হবে। খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে ডাক্তারের কাছে পরামর্শ নিতেই হবে। এতে আমাদের উপকার হবে। monas 10 এর কাজ কি?

মোনাস ১০ সেবন করার আগে আপনাকে একজন চিকিৎসক এর পরামর্শ নিতে হবে। কিংবা খাওয়ার সঠিক নিয়ম জানতে হবে তাছাড়া শরিলের পুষ্টি অথবা ক্ষতি সম্পর্কে জানা যাবেনা। যদি আপনি ভালো কোন চিকিৎসক এর পরামর্শ নিয়ে মোনাস ১০ ঔষধ টি সেবন করতে পারেন, তাহলে আশা করা যায় খুব সহজেই আপনি ভালো ফলাফল লাভ করতে পারবেন। তবে কিছু কিছু ডাক্তার দের মতে,
  1. কোন বাচ্চার বয়স ৬ মাস হতে ৫ বছর বয়স পর্যন্ত যদি এলার্জি অথবা হাঁপানি হয়ে থাকে তাহলে সেক্ষেত্রে মোনাস ৪ মিলি প্রাম ঔষধ টি সেবন করতে হবে।
  2. যদি কোন বাচ্চার বয়স ৬ হতে ১৪ বছর পর্যন্ত বয়স হয়ে থাকে তাহলে তার জন্য মোনাস ৫ মিলি গ্রাম ঔষধ টি সেবন করতে হবে।
  3. আবার কারো বয়স যদি ১৫ বা তার উর্ধে হয়ে থাকে তাহলে সেক্ষেত্রে তার যদি এলার্জি অথবা হাঁপানি হয়। তাহলে তার তাকে মোনাস ১০ মিলি গ্রাম ঔষধ টি ব্যবহার করতে খেতে হবে।

ডোজ মিস হলে করণীয় কি

যদি আপনার মোনাস ১০ ঔষধ টি সেবন করার ক্ষেত্রে কোন সময় তা মিস হয়ে যায় কিংবা কোন সময় যদি মনে না থাকে। তাহলে যখনই আপনার মনে পরবে যে আপনি মোনাস ঔষধ টি সেবন করেন নাই তাহলে সেই ক্ষেত্রে আপনার যখন মনে পরবে ঠিক তখন সঙ্গে সঙ্গে তা সেবন করবেন। এবংযদি দেখা যায় যে সময় অতিরিক্ত হয়ে গেছে তাহলে সেক্ষেত্রে আপনাকে সেই ডোজ টি বাদ দিতে হবে। এবং পরের ডোজ সেবন করার জন্য অপেক্ষা করতে হবে। কারণ কোন কোন এক সঙ্গে দুই ডোজ খেতে যাবেন না।

ডোজ ওভার হলে করণীয় কি

কোন ডোজ যদি ওভার হয়ে যায় তাহলে সেক্ষেত্রে আপনার বিভিন্ন সময় বিভিন্ন রকমের সমস্যা হতে পারে। তবে যদি আপনার কোন ডোজ মিস হয়ে যায় তাহলে সেক্ষেত্রে সর্ব প্রথম আপনার বমি বমি ভাব হবে, মাথা ব্যাথা করবে, পেট ব্যাথা করবে, তাছাড়া আপনার সব সময় মুক্ত বাব বা উতাসিনতা ভাব দেখা দিবে। ঠিক সেই সময় আপনাকে আপনার নিকট বর্তি কোন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে গিয়ে খবর নিতে হবে।

গর্ভাবস্থায় মোনাম ১০ খাওয়া কি নিরাপদ

গর্ভাবস্থায় এই মোনাস ১০ ঔষধ খাওয়া টা ঠিক তখনি নিরাপদ হয়ে থাকে যখন আপনি কোন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক দের পরামর্শ নিবেন। তবে যারা গর্ভবতী তাদের ক্ষেত্রে এই ঔষধ পর্যাপ্ত পরিমানে এখনো নিয়ন্ত্রণ করা হয়নি। তবে যদি খুব বেশি জরুরি হয়ে থাকে তাহলে সেক্ষেত্রে আপনি চিকিৎসক দের পরামর্শ নিয়ে খেতে পারেন। সেক্ষেত্রে সব চেয়ে ভালো উচিৎ হবে চিকিৎসক দের পরামর্শ নিয়ে তার পরে সে অনুযায়ী আপনাকে ঔষধ সেবন করতে হবে। 
তাই আপনি যদি কোন চিকিৎসক এর পরামর্শ ছাড়া মোনাস ১০ ঔষধ সেবন করতে চান তাহলে সেক্ষেত্রে একটি গর্ভবতীর জন্য তা ব্যাবহার করা যাবে না। আর আপনি যদি কোন দুগ্ধ মাতাকে মোনাস সেবন করাতে চান তাহলে সেক্ষেত্রে খুবই সাবধানতা অবলম্বন করে আপনাকে মোনাস ১০ ঔষধ টব সেবন করাতে হবে। তাছাড়া বাচ্চা এবং মা উভয়ের ক্ষেত্রেই তা বিপদ হতে পারে।

মোনাস ১০ এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কি

মোনাস ১০ ঔষধ এর পার্শ্ববর্তিক্রিয়া খুবই কম। সেক্ষেত্রে আমাদের মধ্যে যাদের দেহে কখনোই এডজাস্ট দেখা যায় না তারা অধিক পরিমানে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বুঝতে পারে। মোনাস ১০ ব্যবহারের ফলে নে সব পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয় সেগুলো হলো-
  • দুর্বলতার সৃষ্টি হতে পারে।
  • ডায়রিয়া বা সেই রকম কিছু সমস্যা হতে পারে।
  • কিছু সময় মাথা ব্যথা হতে পারে।
  • জ্বর জ্বর ভাব হতে পারে।
  • অনেক সময় বমি বমি ভাব হতে পারে।
  • হলায় কালো দাগ দেখা দিতে পারে।
  • ঘুমে ব্যাঘাত দেখা দিকে পারে।
  • ত্বকের মধ্য দিয়ে কিছু ক্ষেত্রে জ্বালা পোড়া হতে পারে।
  • চোখের মধ্যে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা হতে পারে।
তবে সাধারণ ভাবেই মোনাস ১০ ঔষধ টি দির্ঘ দিন যাবৎ তা সেবন করার ফলে সেইটা উপরোক্ত ভাবে লক্ষণ করা যায়। অথবা তা পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হওয়ার সম্ভব না রয়েছে অনেক। সেই ক্ষেত্রে আমাদের কিছু গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা হতে পারে। সেক্ষেত্রে তাড়াতাড়ি করে কোন ভালো চিকিৎসক এর কাছে পরিক্ষা করে ঔষধ খেতে হবে।

মোনাস ১০ ঔষুধ টি খাওয়ার পূর্বে যে বিষয়ে সতর্ক থাকা উচিৎ

মোনাস ১০ খাওয়ার আগে আপনাকে চিকিৎসক এর কাছ থেকে পরামর্শ নিতে হবে। এবং সেখানে গিয়ে আপনার সমস্যার কথা বলতে হবে। আর আপনাকে বরতে হবে আপনার কি কি সমস্যা হচ্ছে। বিভিন্ন চিকিৎসক এর পরামর্শ নিয়ে আমাদের কে ঔষধ সেবন করতে হবে। আবার কিছু দিন পরে ডাক্তারের কাছে গিয়ে পরিক্ষা করতে হবে যে বর্তমানে আপনার কি অবস্থা। 

এবং আপনার শরিল আগের থেকে সুস্থ হইচে নাকি আরো খারাপ হইচে সেটি যানাতে হবে। যাতে করে তারা আপনাকে সঠিক চিকিৎসা দিতে পারে। এবং এর ফলে আপনারা খুব সহজেই রোগ হতে মুক্তি পেতে পারেন।

লেখকের মন্তব্য

প্রিয় পাঠক বন্ধু গণ অথবা পাঠিকা বন্ধু, আশা করি উক্ত পোষ্ট আপনি মনযোগ সহকারে পড়েছেন। এতক্ষণ ধরে যদি আপনার পোস্ট মনোযোগ সহকারে পড়ে থাকেন। সে ক্ষেত্রে আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। এতক্ষণ ধরে আপনিও একটু কষ্ট করার ফলে আপনি জানতে পেরেছেন monas 10 এর কাজ কি? এবং মোনাস ১০ এর দাম কতো? আপনি যেই মোনাস ঔষধ খাচ্ছেন সিটি খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে জেনে নিন আগে। 

তারপরে ওষুধ সেবন করুন। সকল তথ্য যদি না জেনে আপনি মোনাস ১০ ঔষধ টি সেবন করেন তাহলে সেক্ষেত্রে আপনার সমস্যা হতে পারে। তাই সমস্ত তত্ব আগে জেনে নিন। তার পরে ঔষধ সেবন করুন। তাছাড়াও আপনি জানতে পেরেছেন মোনাস ঔষধ বা ট্যাবলেট খাওয়া নিরাপত্তা কি? আশা করি এই সকল তত্ব আপনাকে জানাতে পেরেছি। 

আর যদি কোন তত্ব জানার দরকার হয় বা আপনার প্রয়জন থাকে তাহলে আপনি আমাদেরকে জানাতে পারেন। আমরা যথা সার্ধ চেষ্টা করব আপনাদের সেগুলো জানানোর। আর উক্ত পোস্ট টি পরে যদি আপনার ভালো লাগে তাহলে একটা কমেন্টের মাধ্যমে আমাদের তা জানাবেন। এবং আরো বেশি ভালো লাগলে শেয়ার দিয়ে বন্ধুদের দেখার সুযোগ করে দেবেন।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

শামিম বিডির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url